২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ / ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ / ১৮ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি / রাত ৩:০৩

জনপ্রিয় লিটল ম্যাগাজিন ‘সাম্প্রতিক’প্রকাশিত হয়েছে

সমাজ, শিল্প ও সাহিত্যবিষয়ক ছোটকাগজ ‘সাম্প্রতিক’।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ইমেরিটাস প্রফেসর ডক্টর সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীকে নিয়েে একটি সুন্দর প্রবন্ধ উপহার পেয়েছি আমরা। ‘‘রাজনীতির বাইরে নয়’’। শীর্ষমান প্রাবন্ধিক আফজালুল বাসার সুনিপুনতায় লিখেছেন। যত্নে। আর ভাষার গাথুনিতে। বাকীটা- প্রবন্ধ পড়তেই হবে। একজন গুনীমমানুষের কথা জানতে হলে। আরও পাই আমরা ধর্ম-কথন। ‘‘ ধর্মকারার প্রাচীরে বজ্র হানে, এ অভাগা দেশে জ্ঞানের আলো আনো।’’ প্রকৃতই যেন সত্য উন্মোচিত হলো। ‘ধর্মীয় দুরাচার, বর্ণবাদ ও সাম্প্রদায়িকতা প্রসঙ্গে- রবীন্দ্রনাথ শীর্ষক আরও একটি বিশ্লেষণধর্মী প্রবন্ধ। লিখেছেন প্রতিথযশা প্রবন্ধকার আমিনুল ইসলাম বেদু। অন্যান্য প্রবন্ধগুলোও সময়ের প্রয়োজনে। পড়া। প্রয়োজন বলে মনে করি। গণনাট্যের একজন খাঁটি প্রবাদপুরুষ। আমার দেখা। যার কবিতাও সেই কথা যেন বলে। “যায়, সর্ব ভাসি যায় অতলে”- যে ভাষণ না এলে স্বাধীণতা হতো দূরের বাতিঘর। সেই স্বাধীণতার সেই ঐতিহাসিক ‘‘৭ মার্চ ১৯৭১ “ কবিতাটি উঠে এসেছে খ্যাতিমান সম্পাদক, কবি ও সন্মানিত মুক্তিযোদ্ধার স্মৃতির জানালা খুলে। ‘অপরাজিতা ’ মনি হায়দারের একটি গল্প। অন্যান্য গল্পগুলোতেও ভিন্ন ভিন্ন আকুলতা প্রকাশ পেয়েছে। লেখা বাছাই ও প্রকাশনা খুব সুন্দর হয়েছে বলাই চলে। সামনে আরও ভাল কিছু পাঠক যে পাবে। এ কথাও নিশ্চিত বলতে পারি। এবারের সংখ্যাটি নিয়ে- সাম্প্রতিক লিটল ম্যাগাজিন, ৩০ বছর অতিক্রম করল। হাঁটি হাঁটি পা রেখেছে ৩১ এ। ‘গুড়পুকুরের মেলা’ সংখ্যা দিয়ে ছোটকাগজের ১ম বর্ষ, ১ম সংখ্যা প্রকাশিত হয়। সেই ১৯৯২ সালে।এরপর আর পিছু ফিরে তাকায়নি। একে একে ২৭ টি সংখ্যা। সমাজ, শিল্প ও সাহিত্যবিষয়ক লিটন ম্যাগাজিন জগতের পথিকৃত এই ছোটকাগজ। প্রতিবছর একুশে বইমেলায় সাম্প্রতিক প্রকাশনীর পাশাপাশি লিটল ম্যাগাজিনের জন্য আলাদা আরও একটি বাড়তি স্টল পায় ‘সাম্প্রতিক’। প্রসিদ্ধ এই ছোটকাগজটিতে দীর্ঘ একত্রিশটি বছর অনেক প্রখ্যাত, গুণী ও বিজ্ঞজনরা লেখে গেছেন প্রাণের তাগিদে। একনাগাড়ে। কার্তিক ১৪৩০, নভেম্বর ২০২৩, বর্ষ ৩১ এর প্রথম সংখ্যা বাজারে এলো। লেখক, পাঠক, শুভানুধ্যায়ী, শুভাকাঙ্খী, বিজ্ঞাপনদাতাদের কাছে লিটল ম্যাগাজিন পৌঁছে গেছে। এই সংখ্যাটি এসেছে ঝকঝকে সুন্দর ম্যাটকভারে। শৈল্পিক নিপুণতায় প্রচ্ছদ এঁকেছেন শিল্পী সব্যসাচী হাজরা। নান্দনিক একটি প্রচ্ছদ হয়েছে। সংখ্যাটি দেখার মতো। ৮ টি প্রবন্ধ, প্রবীন ও তরুণ কবিদের সমন্বয়ে ৯৫ টি কবিতা, ১টি গুচ্ছকবিতা, ১ টি শ্রদ্ধাঞ্জলি, ২ টা নিবন্ধ,  ছোট বড় মিলিয়ে ৪ টি গল্প, ১ টি গ্রন্থলোচনা ও ৩ টি রেখাচিত্র দিয়ে সাজানো হয়েছে এই সংখ্যাটি। এই সংখ্যায় কোন সম্পাদকীয় নেই। তবে সাম্প্রতিক ছোট কাগজের প্রতিটি সংখ্যার নানান স্মৃতিচারণ উঠে এসেছে কবি, প্রকাশক ও ‘সাম্প্রতিক’ সম্পাদক আমিরুল বাসারের ‘সাম্প্রতিক’ ও কিছু কথা’বিশ্লেষণধর্মী লেখাটিতে। ২২৪ পৃষ্ঠার কলেবরে সাম্প্রতিকের বিনিময় মূল্য ধরা হয়েছে ২০০ টাকা। লিটল ম্যাগাজিনটির উপদেশক আমিনুল ইসলাম বেদু। ১২ জন দেশসেরা কবি সাহিত্যিকও জড়িত আছেন সম্পাদনা পরিষদে। আমিরুল বাসার ছোটকাগজটির প্রতিষ্ঠাতা ও সম্পাদক। নির্বাহী সম্পাদক হচ্ছেন রফিকুল বাসার। ‘সাম্প্রতিক’ ইতিমধ্যেই দেশ বিদেশে সমাদৃত একটি ছোটকাগজ। সবসময় পাওয়া যায় ভারত, আমেরিকা ও ইংল্যান্ডে। আর নিজভুমে ঢাকা ছাড়াও আরও ১৫ টি জেলাসদরে তো আছেই। পলাশপোল, সাতক্ষীরা ও ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সদর দপ্তর থেকে যুগসেরা এই লিটল ম্যাগাজিনটি প্রকাশিত হচ্ছে।

মারুফ আহমেদ, বিশেষ প্রতিনিধি