৩রা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ / ১৯শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ / ২২শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরি / রাত ৩:০১

দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল

ভারত বিশ্বকাপ থেকে ব্যর্থতার গ্লানি নিয়ে দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। এই আসরে ৯ ম্যাচ খেলে ৭টিতেই হেরেছে বাংলাদেশ। এই ব্যর্থতার জন্য অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের সমালোচনায় মুখর দর্শক-সমর্থক ও ক্রিকেট বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, অধিনায়কের স্বেচ্ছারিতা, বাজে দল পরিচালনা এবং পুরো আসরেই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানদের ভালো খেলতে পারেনি। দলের এই ব্যর্থতার কারণ তদন্ত করার দাবিও উঠেছে। 

চলতি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের পালা শেষ। ২০০৩’র পর বিশ্বকাপ ক্রিকেটে সবচেয়ে বাজে পারফরম্যান্স নিয়ে ভারত বিশ্বকাপ শেষ করলো বাংলাদেশ দল। ৯ খেলায় অংশ নিয়ে বাংলাদেশ হেরেছে সাতটিতে। ফলে সেমিফাইনালে খেলার যে স্বপ্ন নিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বকাপে যাত্রা করেছিলো, সেটার বাস্তবায়ন ঘটানো সম্ভব হয়নি। 

বিশ্বকাপ শুরুর আগে তামিম ইকবালকে দল থেকে বাদ দেয়াসহ নানা বিতর্ক নিয়ে মিশন শুরু হয়েছিলো বাংলাদেশের। বিশ্বকাপের মূল মঞ্চে বাংলাদেশ খেলতে পারেনি একটি দল হিসেবে। কোন ম্যাচেই ছিলো না নির্দিষ্ট পরিকল্পনা। একেক ম্যাচে একেকজনকে খেলানো হয়েছে ইচ্ছেমতো ব্যাটিং অর্ডার বদল করে। বোলাররাও পারেননি নিজেদের প্রত্যাশানুযায়ী সাফল্য এনে দিতে। 

বিশ্বকাপ চলাকালীন ভারতে দল রেখে অধিনায়নক সাকিবের একা ঢাকা আসা, আবার ফিরে যাওয়া, তার নিজের বাজে পারফরম্যান্স, স্বেচ্ছাচারিতা, পুরো আসরেই ব্যর্থতার বৃত্তে আবদ্ধ ছিলো। উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানরা পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। গত কয়েকটি বিশ্বকাপের মধ্যে বাংলাদেশ দল এবার সবচেয়ে বাজে পারফরম্যান্স করেছে বলে মনে করেন ক্রীড়া সংগঠক তানভীর মাজহারুল ইসলাম। 

বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা কমিটি, নির্বাচক প্যানেলসহ সংশ্লিষ্টরা কেন ব্যর্থ হলো বিশ্বকাপে, সেটা তদন্ত করে দোষীদের শাস্তি দেয়ার দাবি জানালেন বিসিবির সাবেক এই সাধারণ সম্পাদক।  

এবারের বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের ভালো না করার পেছনে সাকিব আল হাসানের দায়বদ্ধতা সবচেয়ে বেশি। তাকে বাদ দিয়ে এখন থেকেই ভবিষ্যত পরিকল্পনা নেয়ার পরামর্শ দেন এই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বিশ্লেষক অনিল কুম্বলে। 

বিশ্বকাপের ব্যর্থ মিশন শেষে, কয়েকদিন বিশ্রাম নিয়ে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে হোম সিরিজের প্রস্তুতি নেবে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল