২৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ / ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ / ২১শে জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি / সকাল ৮:২৭

প্রাথমিক দলে থাকছেন রিয়াদ

ঘরের মাঠে আফগানিস্তানের বিপক্ষে পূর্ণাঙ্গ সিরিজের পরপরই এশিয়া কাপ ও বিশ্বকাপের প্রস্তুতি নিতে কন্ডিশনিং ক্যাম্প শুরু করার দিনক্ষণ ঘোষণা করেছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। সে সময় ২৯ জুলাই থেকে ক্যাম্প শুরু হওয়ার কথা জানায় বিসিবি।

তবে ক্যাম্প শুরুর ৫ দিন আগে (২৪ জুলাই) সেটি পিছিয়ে দেয় বিসিবি। পরিবর্তিত সূচিতে ২৯ জুলাইয়ের পরিবর্তে ৩১ জুলাই থেকে শুরু হবে ক্যাম্প। এশিয়া কাপ ও বিশ্বকাপকে সামনে রেখে শুরু হওয়া সেই ক্যাম্পে থাকবেন প্রায় ২৮ জন ক্রিকেটার। প্রাথমিক এই স্কোয়াডে অভিজ্ঞদের পাশাপাশি তরুণদেরও রাখছে বিসিবি। এই স্কোয়াড ডাক পাচ্ছেন সম্প্রতি জাতীয় দল থেকে বাদপড়া মিডল-অর্ডার ব্যাটার মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও। বিতর্ক এড়াতেই নাকি রিয়াদকে নিচ্ছে বিসিবি। তবে বিতর্ক এড়ানোর বিষয়টি স্বীকার করতে নারাজ বিসিবির কর্তারা।

এ বিষয়ে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু জানান, রিয়াদ কেন্দ্রীয় চুক্তিতে আছে। কেন্দ্রীয় চুক্তির সবাই কন্ডিশনিং ক্যাম্পে থাকবে। কারণ, এই ক্যাম্পটা হচ্ছে ফিটনেস ক্যাম্প।

এদিকে টানা তিন সিরিজে ছিলেন না রিয়াদ। হজে যাওয়ার কারণে হোম ভেন্যুতে আফগানদের বিপক্ষেও ছিলেন না অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটার। তবে দলের সঙ্গে না থাকলেও হজ থেকে ফিরেই মিরপুরে রিয়াদকে অনুশীলন করতে দেখা গেছে। জাতীয় দলের অধিকাংশ ক্রিকেটার ছুটি কাটালেও একাই অনুশীলন করেছেন ডানহাতি এই ব্যাটার।

অন্যদিকে গুঞ্জন রয়েছে, ইমার্জি এশিয়া কাপে খেলা বেশ কিছু ক্রিকেটারকেও কন্ডিশনিং ক্যাম্পে ডাকা হতে পারে। বিষয়ে করে ওপেনিংয়ে তামিম ইকবাল ও লিটন দাস ছাড়াও আরও তিনজনের জায়গা হতে পারে। কেননা, তামিমের চোট নিয়ে এখনও নানান গুঞ্জন রয়েছে ক্রিকেটপাড়ায়। তাই তার বিকল্প বিবেচনায় এই সিদ্ধান্ত নিচ্ছে নির্বাচক প্যানেল।

এ বিষয়ে নান্নুর ভাষ্য, ক্যাম্পটি আমরা ৩১ জুলাই থেকে শুরু করব। ২৭ থেকে সর্বোচ্চ ২৮ জন থাকবে সেই কন্ডিশনিং ক্যাম্পে। যেহেতু কন্ডিশনিং ক্যাম্প, তাই আমরা কয়েকজন ক্রিকেটারকে বাড়তি ডাকবো। সে তালিকায় কারা থাকবে, আমরা আগে থেকে তা বলতে চাচ্ছি না।