২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ / ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ / ১৬ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি / রাত ১০:৫৪

রিয়াদকে বাদ দেওয়া নিয়ে যা বলল বিসিবি

আসন্ন এশিয়া কাপের জন্য দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। আজ শনিবার সকালে সংবাদ সম্মেলন করে ১৭ সদস্যের দল ঘোষণা করেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের নির্বাচক কমিটি। আর ঘোষিত দলে জায়গা হয়নি মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের। 

বিসিবি সভাপতি গতকাল শুক্রবার সাকিব আল হাসানকে জাতীয় দলের নতুন ওয়ানডে অধিনায়ক হিসেবে ঘোষণা দেয়ার সময়ই জানিয়েছিলেন আজ ঘোষণা করা হবে এশিয়া কাপের জন্য টাইগারদের স্কোয়াড। সেই মোতাবেক আজ সকালেই দল ঘোষণা করেন নির্বাচক কমিটির প্রধান মিনহাজুল আবেদিন নান্নু। 

গতকাল সাকিবকে অধিনায়ক হিসেবে ঘোষণা দেয়ার সময় নাজমুল হাসান পাপন জানিয়েছিলেন, ১৭ সদস্যের স্কোয়াডের বাইরে বাড়তি ক্রিকেটার হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন রিয়াদ এবং আফিফ হোসেনকে। তবে রিয়াদ দলে জায়গা না পেলেও আফিফ ঠিকই দলে আছেন। এছাড়া ওপেনার হিসেবে নাইম শেখকেও দলে রেখেছে নির্বাচক কমিটি।  

সাত নম্বর পজিশনে এশিয়া কাপ এবং বিশ্বকাপে কে থাকবেন এ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই চলছিল জোর আলোচনা। নজরে ছিলেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মোসাদ্দেক হোসেন এবং আফিফ হোসেন। তবে সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে শেষ পর্যন্ত বাদই পড়লেন রিয়াদ। তবে সাম্প্রতিক সময়ে তাঁর নিয়মিত অনুশীলন করা এবং ফিটনেস টেস্টে অংশ নেয়ায় তাঁর দলে থাকা নিয়ে গুঞ্জন শুরু হয়েছিল। 

রিয়াদকে কেনো দলে রাখা হয়নি এমন প্রশ্নে প্রধান নির্বাচক নান্নু বলেন, ‘মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে নিয়ে অনেক লম্বা আলোচনা হয়ে আসছে শুরুর দিকে। তারপর অনেক আলোচনার পর টিম ম্যানেজমেন্ট আমাদেরকে একটা পরিকল্পনা দেয়, সামনে কীভাবে কোন দেশের সঙ্গে খেলবে এবং তার কৌশল। সেই চিন্তা-ভাবনা থেকেই রিয়াদকে বাদ দেওয়া হয়েছে। ম্যানেজমেন্টের পরিকল্পনাকে আমরা অবশ্যই ভালো মনে করছি। ওদের সঙ্গে যেহেতু হেড কোচের একটা পরিকল্পনা আছে টিম পরিচালনার বিষয়ে। এ নিযে আমাদের অধিনায়কের (সাকিব আল হাসান) সঙ্গেও আলোচনা হয়েছে।’

বিশ্বকাপের ভাবনায় রিয়াদ থাকবেন কিনা এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘বিশ্বকাপের দল এখন নয়, আপাতত এশিয়া কাপ। বিশ্বকাপের দলও আপনাদেরকে জানানো হবে। এখন এশিয়া কাপ নিয়ে আলোচনা করছি। যা নিয়ে টিম ম্যানেজমেন্ট আমাদেরকে একটা পরিকল্পনা দিয়েছে, অতিরিক্ত স্পিনার বা পেসার নিয়ে খেলা এ ধরনের ব্যাপার নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতেই সিদ্ধান্তটা নেওয়া হয়।’

সবমিলিয়ে ম্যানেজমেন্টের ওপরই পুরো ভার দিয়েছেন নান্নু, ‘এই ম্যানেজমেন্টের আন্ডারে মিরাজকেই সাতে কন্ডিডার করা হচ্ছিল কয়েকটা সিরিজে। মিরাজের ওপর আমরা যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী। আট নম্বরে অতিরিক্ত পেসার বা স্পিনার যখন যেটা যে কন্ডিশনে দরকার হবে, ওভাবেই কিন্তু আগায়। টিম ম্যানেজমেন্টের অনেক পরিকল্পনা আছে, যেগুলো এখানে শেয়ার করতে পারি না। ম্যানেজমেন্টের পরিকল্পনা নিয়ে সমন্বিত সিদ্ধান্ত নিয়েই দলটা তৈরি করা হয়েছে।’