স্বস্তি মিলছে শীতের সবজিতে, চাল-তেলের দাম বেড়েছে


এম.এ.টি রিপন প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ১১, ২০২০, ২:৪৪ অপরাহ্ন / ৪৪
স্বস্তি মিলছে শীতের সবজিতে, চাল-তেলের দাম বেড়েছে

মহামারি করোনায় এ বছর অনেকে চাকরি হারিয়ে বেকার হয়ে পড়েছেন। ব্যবসা-বাণিজ্য কমে যাওয়ায় আয় কমেছে অনেকের। এমন কঠিন পরিস্থিতিতে মানুষ যখন কোনো রকম টিকে থাকার চেষ্টা করছেন ঠিক সেসময় বাড়ছে চাল-তেলসহ কয়েকটি

তবে শীতের সবজির সরবরাহ বেড়ে যাওয়ায় দাম কমতে শুরু করেছে।

শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ান বাজার, হাতিরপুল, নাখালপাড়াসহ কয়েকটি  বাজারে খোঁজ নিয়ে এসব তথ্য জানা গেছ। বাজারে গত এক সপ্তাহে সব ধরনের চালের কেজিতে দাম বেড়েছে গড়ে ৩ থেকে ৫ টাকা। এছাড়া ভোজ্যতেলের দাম বেড়েছে গড়ে কেজিপ্রতি ৫ থেকে থেকে ৬ টাকা। আটা ও ময়দার কেজিতেও বেড়েছে ২ থেকে ৪ টাকা।

ক্রেতারা বলছেন, করোনায় আয়-রোজগার কমে যাওয়ায় মানুষকে কঠিন সময় পার করতে হচ্ছে। এর মধ্য চাল-তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের এই বাড়তি দাম মরার উপর খাঁড়ার ঘাঁ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

তাই দুর্যোগের সময়ে জিনিসপত্রের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে বাজারে তদারকি বাড়াতে হবে।

বাজারে যে চাল-তেলের দর বাড়ছে, সেই তথ্য সরকারি বিপণন সংস্থা টিসিবির শুক্রবারের বাজার দরের তথ্যেও দেখা গেছে। টিসিবির তথ্যমতে, প্রতিকেজি চিকন চাল (নাজিরশাইল ও মিনিকেট) বিক্রি হচ্ছে ৫৬ থেকে ৬২ টাকায়। যা এক সপ্তাহ আগে বিক্রি হয়েছিল ৬২ থেকে ৬০ টাকায়।

মাঝারি মানের চাল (পাইজাম ও লতা) প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫৪ টাকায়। যা এক সপ্তাহ আগে বিক্রি হয়েছিল ৪৮ থেকে ৫৫ টাকায়।

আর নিম্ন আয়ের মানুষের একমাত্র ভরসা মোটা চালের (স্বর্ণা ও চায়না ইরি) কেজি এখন কিনতে হচ্ছে ৪৪ থেকে ৪৮ টাকায়। যা এক সপ্তাহ আগেও বিক্রি হয়েছিল ৪৩ থেকে ৪৮ টাকায়।

৫ লিটার সোয়াবিন তেলের বোতল বিক্রি হচ্ছে ৫১০ থেকে ৫৫০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৫০০ থেকে ৫৩০ টাকা। পামওয়েল প্রতি লিটার বিক্রি হচ্ছে ৯৬ থেকে ৯৮ টাকা, এক সপ্তাহ আগে দাম ছিল ৯৪ থেকে ৯৬ টাকা।

তবে বাজারে দেখা গেছে, টিসিবির দেয়া দামের চেয়েও বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে চাল ও তেল।