অবৈধ হাসপাতাল-ক্লিনিকের বিরুদ্ধে চলছে দেশব্যাপী অভিযান


এম.এ.টি রিপন প্রকাশের সময় : মে ২৯, ২০২২, ১:৪৬ অপরাহ্ন /
অবৈধ হাসপাতাল-ক্লিনিকের বিরুদ্ধে চলছে দেশব্যাপী অভিযান

দেশের অবৈধ হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধে কঠোর অবস্থানে সরকার। এ লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে ৭২ ঘণ্টা সময় বেঁধে দিয়েছিলো স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, যা রবিবার শেষ হচ্ছে। এরই মধ্যে গতকাল শনিবার কুষ্টিয়া, চাঁদপুর ফরিদপুর, নাটোর, নোয়াখালী ও ভোলা জেলার স্থানীয় প্রশাসন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের (ডিজিএইচএস) নির্দেশনা অনুসরণ করে অনেক অনিবন্ধিত ক্লিনিক, হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ করে দেওয়া হয়।

এর মধ্যে ফরিদপুরের পাঁচ উপজেলায় ২০টি, নোয়াখালীতে নয়টি, নাটোরে সাতটি, কুষ্টিয়ায় পাঁচটি, চাঁদপুরে চারটি এবং ভোলায় একটি উপজেলায় সিলগালা করা হয়েছে।https://googleads.g.doubleclick.net/pagead/ads?client=ca-pub-2955358375522119&output=html&h=280&slotname=7458591574&adk=3846397956&adf=3805079044&pi=t.ma~as.7458591574&w=916&fwrn=4&fwrnh=100&lmt=1653810274&rafmt=1&psa=1&format=916×280&url=https%3A%2F%2Fwww.bvnews24.com%2Fnational%2Fnews%2F65896&fwr=0&fwrattr=true&rpe=1&resp_fmts=3&wgl=1&adsid=ChAI8LPMlAYQjbq74J6XuOpSEjkAVlULhLlJ7nm0Pe155vH4P-ToFaNRI2BjzFnY1xLyrFZWS-kb2Znj_T5tzDf8BRT6X2_BYEW3FGQ&uach=WyJXaW5kb3dzIiwiMTAuMC4wIiwieDg2IiwiIiwiMTAyLjAuNTAwNS42MiIsW10sbnVsbCxudWxsLCI2NCIsW1siIE5vdCBBO0JyYW5kIiwiOTkuMC4wLjAiXSxbIkNocm9taXVtIiwiMTAyLjAuNTAwNS42MiJdLFsiR29vZ2xlIENocm9tZSIsIjEwMi4wLjUwMDUuNjIiXV0sZmFsc2Vd&dt=1653810274565&bpp=11&bdt=517&idt=11&shv=r20220525&mjsv=m202205240101&ptt=9&saldr=aa&abxe=1&cookie=ID%3De01f16174c5a6bda-2231f5837ad100b3%3AT%3D1641986160%3ART%3D1648956869%3AS%3DALNI_MZLmgLOExgCYnGqevZFUP7nNtBI-w&gpic=UID%3D00000539b374db84%3AT%3D1652074088%3ART%3D1653810073%3AS%3DALNI_MbgcMhBqAJDAyysV88X6uRTqKkKUg&prev_fmts=0x0%2C728x90%2C300x100%2C1047x280%2C300x250%2C344x280%2C916x280&nras=1&correlator=7967378870912&frm=20&pv=1&ga_vid=2082275298.1641986160&ga_sid=1653810274&ga_hid=185935416&ga_fc=1&u_tz=360&u_his=10&u_h=768&u_w=1366&u_ah=728&u_aw=1366&u_cd=24&u_sd=1&dmc=4&adx=35&ady=1535&biw=1349&bih=568&scr_x=0&scr_y=0&eid=44759875%2C44759926%2C44759842&oid=2&pvsid=2773122574882397&pem=161&tmod=853814590&uas=0&nvt=1&ref=https%3A%2F%2Fwww.bvnews24.com%2Fnational%2F&eae=0&fc=1920&brdim=0%2C0%2C0%2C0%2C1366%2C0%2C1366%2C728%2C1366%2C568&vis=1&rsz=M%7C%7CpeEbr%7Cp&abl=XS&pfx=0&fu=128&bc=31&jar=2022-05-29-07&ifi=5&uci=a!5&btvi=4&fsb=1&xpc=QAQfwAoQi0&p=https%3A//www.bvnews24.com&dtd=296

লাইসেন্স না পাওয়া পর্যন্ত কোনো ক্লিনিক, বেসরকারি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে তাদের কার্যক্রম চালানোর অনুমতি দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ।

ফরিদপুর জেলার সিভিল সার্জন ডা. মো. সিদ্দিকুর রহমানের নেতৃত্বে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের একটি দল ফরিদপুর সদর উপজেলায় দুটি, সালথা উপজেলায় তিনটি, মধুখালী ও বোয়ালমারী উপজেলায় সাতটি এবং সদরপুর উপজেলায় একটি করে ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ করে দেয়।https://googleads.g.doubleclick.net/pagead/ads?client=ca-pub-2955358375522119&output=html&h=280&slotname=7458591574&adk=3846397956&adf=649016097&pi=t.ma~as.7458591574&w=916&fwrn=4&fwrnh=100&lmt=1653810274&rafmt=1&psa=1&format=916×280&url=https%3A%2F%2Fwww.bvnews24.com%2Fnational%2Fnews%2F65896&fwr=0&fwrattr=true&rpe=1&resp_fmts=3&wgl=1&adsid=ChAI8LPMlAYQjbq74J6XuOpSEjkAVlULhLlJ7nm0Pe155vH4P-ToFaNRI2BjzFnY1xLyrFZWS-kb2Znj_T5tzDf8BRT6X2_BYEW3FGQ&uach=WyJXaW5kb3dzIiwiMTAuMC4wIiwieDg2IiwiIiwiMTAyLjAuNTAwNS42MiIsW10sbnVsbCxudWxsLCI2NCIsW1siIE5vdCBBO0JyYW5kIiwiOTkuMC4wLjAiXSxbIkNocm9taXVtIiwiMTAyLjAuNTAwNS42MiJdLFsiR29vZ2xlIENocm9tZSIsIjEwMi4wLjUwMDUuNjIiXV0sZmFsc2Vd&dt=1653810274582&bpp=2&bdt=534&idt=2&shv=r20220525&mjsv=m202205240101&ptt=9&saldr=aa&abxe=1&cookie=ID%3De01f16174c5a6bda-2231f5837ad100b3%3AT%3D1641986160%3ART%3D1648956869%3AS%3DALNI_MZLmgLOExgCYnGqevZFUP7nNtBI-w&gpic=UID%3D00000539b374db84%3AT%3D1652074088%3ART%3D1653810073%3AS%3DALNI_MbgcMhBqAJDAyysV88X6uRTqKkKUg&prev_fmts=0x0%2C728x90%2C300x100%2C1047x280%2C300x250%2C344x280&nras=1&correlator=7967378870912&frm=20&pv=1&ga_vid=2082275298.1641986160&ga_sid=1653810274&ga_hid=185935416&ga_fc=1&u_tz=360&u_his=10&u_h=768&u_w=1366&u_ah=728&u_aw=1366&u_cd=24&u_sd=1&dmc=4&adx=35&ady=1983&biw=1349&bih=568&scr_x=0&scr_y=0&eid=44759875%2C44759926%2C44759842&oid=2&pvsid=2773122574882397&pem=161&tmod=853814590&uas=0&nvt=1&ref=https%3A%2F%2Fwww.bvnews24.com%2Fnational%2F&eae=0&fc=1920&brdim=0%2C0%2C0%2C0%2C1366%2C0%2C1366%2C728%2C1366%2C568&vis=1&rsz=M%7C%7CpeEbr%7Cp&abl=XS&pfx=0&fu=128&bc=31&jar=2022-05-29-07&ifi=6&uci=a!6&btvi=3&fsb=1&xpc=U4id5eeAxA&p=https%3A//www.bvnews24.com&dtd=259

নাটোর স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ ও জেলা প্রশাসনের যৌথ অভিযানে সেন্ট্রাল ল্যাব ডায়াগনস্টিক, পদ্মা ক্লিনিক, ফাইম ডায়াগনস্টিক, বরাত ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড ক্লিনিক, হেলথকেয়ার ডায়াগনস্টিক, তামান্না ডায়াগনস্টিক ও মদিনা চক্ষু হাসপাতাল সিলগালা করা হয়।

কুষ্টিয়ার সিভিল সার্জন ডা. এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম জানান, নির্দেশনা অনুযায়ী কুমারখালী উপজেলার পাঁচটি অবৈধ প্রাইভেট ক্লিনিক বন্ধ ও অন্যটিকে সতর্ক করা হয়েছে। বন্ধ হওয়া ক্লিনিকগুলো হলো—প্রতীক আধুনিক ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার, প্রদীপ ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টার, বিশ্ব ডেন্টাল কেয়ার, শিমুল ডেন্টাল কেয়ার এবং কুমারখালী ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশন।

এছাড়া হাইমচর উপজেলায় তিনটি এবং চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ উপজেলায় একটি অবৈধ ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ করা হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বেলায়েত হোসেন ও ডা. গোলাম মাওলা জানান।

ভোলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আলী সুজা ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান পরিচালনা করে আইনি কাগজপত্র ও লাইসেন্স দিতে না পারায় আব্দুল খালেক মেমোরিয়াল হাসপাতাল সিলগালা করে দেন।

নোয়াখালীর বিভিন্ন উপজেলায় অনিবন্ধিত ক্লিনিকের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করছে প্রশাসন। অভিযানে এ পর্যন্ত নয়টি ক্লিনিক বন্ধ করা হয়েছে। এ ছাড়া অপরিচ্ছন্নতার জন্য আরও কয়েকটি ক্লিনিককে প্রাথমিকভাবে সতর্ক করা হয়েছে।

এছাড়া নিবন্ধন না থাকায় সাভার ও ধামরাইয়ে একটি হাসপাতাল ও তিনটি ক্লিনিক বন্ধ করে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন।

শনিবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিক) ডা. মো. বেলাল হোসেন সাংবাদিকদের জানান, অবৈধ ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধে নিয়মিত অভিযান চলছে। ৭২ ঘণ্টা শেষ হলে অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা বসবেন। নিবন্ধনের কতোটা অগ্রগতি হয়েছে, অবৈধ কতগুলো ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ হয়েছে, সেটি পর্যালোচনা করা হবে। এরপর সেই পরিস্থিতি অনুযায়ী-বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ও সিভিল সার্জনসহ সংশ্লিষ্ট যারা আছেন, তাদের সঙ্গে বসে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ডা. বেলাল হোসেন বলেন, সারা দেশে কতোগুলো অবৈধ ক্লিনিক ডায়াগনস্টিক সেন্টার আছে, সেই তথ্য আমাদের কাছে নেই। কারণ যারা অবৈধভাবে ক্লিনিক বা ডায়াগনস্টিক সেন্টার দিয়েছে, তাদের সংখ্যাটা বলা যাচ্ছে না। যারা আবেদনই করেনি, তাদের তথ্য আমরা জানবো কী করে?

অধিদপ্তরের পরিচালক জানান, অবৈধগুলোর নির্দিষ্ট তালিকা না থাকলেও বৈধদের তালিকা জেলা সিভিল সার্জনদের কাছে রয়েছে। সে অনুযায়ী অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

গত বৃহস্পতিবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক বিজ্ঞপ্তিতে অবৈধ প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানানো হয়। বেসরকারি ক্লিনিক ও হাসপাতালের মনিটরিং এবং সুপারভিশন নিয়ে গত ২৪ মে বিকালে ভার্চ্যুয়ালি এক সভায় এই সিদ্ধান্ত হয়। এই সিদ্ধান্তের পরই দেশের সব অবৈধ ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধের নির্দেশের পর সারা দেশে অভিযান শুরু করে প্রশাসন। প্রতিষ্ঠান বন্ধের পাশাপাশি করা হচ্ছে জরিমানা।