বাঘারপাড়ায় আমন ধানের চিটা বেশি –


এম.এ.টি রিপন প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ২, ২০২২, ৭:১৪ অপরাহ্ণ /
বাঘারপাড়ায় আমন ধানের চিটা বেশি –

ফলন কম হওয়ায় কৃষকের মাথায় হাত

সাঈদ ইবনে হানিফ ঃ যশোরের বাঘারপাড়ায় এবছর আমন ধানে অতিরিক্ত চিটা হওয়ার কারণে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকের মাথায় হাত উঠেছে। উৎপাদন খরচ বৃদ্ধির পাশাপাশি আবাদকৃত ধানের বেশি পরিমাণ চিটা হওয়ায় খরচ না উঠার মূখ্য কারন হিসাবে

কৃষি অফিসারদের অসহযোগিতা ও অবহেলাকে দায়ী করছেন ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকমহল । কৃষকদের দাবি, সময় মত সার,সেচ দিতে না পারায় এবং পোঁকার আক্রমণে নাজেহাল হয়েছে চাষিমহল । এসময়, কৃষি কর্মকর্তাদের সঠিক পরামর্শ না পাওয়ায় ধানে চিটা হয়েছে বলে অভিযাগ তাদের । এসব কারণে মোট খরচের অর্ধেকও ফলন হয়নি অনেকের।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, এবছর বিভিন্ন মাঠে ব্রি-৪৯, ব্রি-৮৭, ব্রি-৭৫, বিনা-১৭, হাবু, গুটি স্বর্ণা, হাইব্রিড ধানী গাল্ড ও ব্রি-৫১ জাতের ধান চাষ হয়েছে। এসব এলাকার কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে , চাষের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পর্যাপ্ত পানি না থাকা ও সারের দাম বৃদ্ধিতে এমন ক্ষতির মুখে পড়তে হয়েছে তাদের । একই সাথে ধানের বিভিন্ন ধরনের রোগ ও পোকার আক্রমণে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে আমন ধানের মাঠ। উপজেলার রাধানগর গ্রামের আলাউদ্দিন, ঘোষনগর গ্রামের গউর দেবনাথ, সহ শেখেরবাতান গ্রামের কৃষক আমজাদ আলী জানান, জমি তৈরি থেকে শুরু করে ধান কেটে ঘরে তোলা পর্যন্ত যা খরচ হয়েছে তার অর্ধক টাকার ধান বিক্রি হয় কি না সন্দেহ রয়েছে । তাদের দাবি, (৫২শতাংশ = ১বিঘা) জমিতে ধান চাষ করে সার, পানি, শ্রমিকের মুজুরিসহ ১৬ থক ১৭ হাজার টাকার মত খরচ হয়েছে। এক বিঘায় ১৫-১৬ মন ধান হয়েছে। মাড়াই শেষে হিসাব করে দেখা গেছে বিঘাপ্রতি ৪ থেকে ৫ হাজার টাকার ক্ষতি হচ্ছে। রামনগর গ্রামের কৃষক ইউনুচ আলী বলেন, এবছর ১২০ শতক জমিতে ব্রি-৪৯ জাতের ধান চাষ করেছিলাম । ধান মাড়াই করে ৫২ মণ ধান হয়েছে । ধানে অতিরিক্ত চিটা হওয়ায় ফলন কমে গেছে। গত আমন মৌসুমে একই পরিমান জমিতে ৭৫ মণ ধান হয়েছিল। পাইকপাড়া গ্রামের কৃষক আখতারুজ্জাামান জানান, এক বিঘা জমিতে হাবু জাতের ধান চাষকরেছিলাম, এতে ফলন হয়েছে ২০ মণ ২০ কেজি। আবাদে খরচ হয়েছে ২০ হাজার টাকার মত। ধানে চিটা বেশি হওয়ায় লাভ তো দূরে থাক, খরচার টাকাও উঠছে না। তিনি আরও বলেন, আমন মৌসুমে উপজেলার কোন কৃষি কর্মকর্তাকে মাঠে পাইনি। তাদের কোন উপদেশ বা পরামর্শ কোনটাই পাইনি। এ ছাড়াও রাসায়নিক সারের ঘাটতি ছিল। বেশি দামেও সার পাচ্ছিলাম না। আবার বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির অজুহাতে সেচ মালিকরাও সে সময় সেচ দিতে রাজি হয়নি। অন্য দিকে সেচ-মৌসুমে বিদ্যুৎ বিভ্রাট ও ছিল আলোচিত।

তবে কৃষকদের এসব অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাগন। কিছু কৃষক তাদের ফসলে পোঁকামাকড়ের আক্রমণ ও প্রাকৃতিক বৈরীতার কারণে ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে, তবে তাদের সংখ্যা খুবই কম। তারা বলেন, সবকিছু মিলিয়ে এবছর উপজেলার বেশিরভাগ মাঠে আমন ধানের ভালো ফলন হয়েছে।